ডেস্ক রিপোর্ট

১৬ আগস্ট ২০২২, ৫:৩৫ অপরাহ্ণ

একজন চা শ্রমিক দৈনিক ১২০ টাকা মজুরি দিয়ে কীভাবে পরিবার চালাবে?

আপডেট টাইম : আগস্ট ১৬, ২০২২ ৫:৩৫ অপরাহ্ণ

শেয়ার করুন

শাবি প্রতিনিধি: চা শ্রমিকদের চলমান আন্দোলনের সাথে সংহতি জানিয়ে তাদের বেতন বৃদ্ধি ও চলমান বৈষম্য দূর করতে মানববন্ধন করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট।

মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ভবনের সামনে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন জোটের নেতৃবৃন্দ।

মানববন্ধন শেষে সংক্ষিপ্ত সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের নেতৃবৃন্দ বলেন, বর্তমানে যেভাবে দ্রব্য মূল্যের দাম বাড়ছে তাতে চা শ্রমিকদের জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠছে। এখন দোকানে এক কাপ চা খেতেও ২০-৫০ টাকা লাগে। তবে সে চায়ের যারা যোগান দেয় তারা শোষিত বেশি। একজন চা শ্রমিক দৈনিক ১২০ টাকা মজুরি দিয়ে কীভাবে পরিবার চালাবে? আমরা দেখেছি খাবারের অভাবে বেশিরভাগ সময় চা পাতার ভর্তা খেয়েই কাটিয়ে দিচ্ছে জীবন। অনেক সময় দিনে ২৪কেজি চা তুলতে না পারলে সে ১২০টাকা মজুরিও তাদের দেওয়া হয় না।

তারা বলেন, ‘চা শ্রমিকরা দৈনিক ৩০০ টাকা পারিশ্রমিকের জন্য আন্দোলন করছে। তাদের আন্দোলনের প্রতি আমাদের পূর্ণ সমর্থন আছে। এটা একটা যৌক্তিক আন্দোলন, এটা আরো আগে সংস্কার হওয়া দরকার ছিল। এসময়ে একজন শ্রমিক কি কেবল চাল খেয়েই বাঁচবে? বাকি খাবার তো ১২০ টাকায় কেনা সম্ভব নয়। চিকিৎসা, শিক্ষা, পোশাক- এসব কীভাবে ব্যবস্থা করবে চা শ্রমিকরা? তাই অবিলম্বে তাদের বেতন ৩০০টাকা করা হোক।

সমাবেশে চা শ্রমিকদের প্রতিনিধি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রূপালী পাল বলেন, চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির এই আন্দোলন অনেক আগে থেকেই। এখন দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়ার কারণে এ আন্দোলন আরও জোরদার করা হয়েছে। আজকে প্রায় ৬ দিন হয়ে গেছে তাদের আন্দোলন কিন্তু এখন পর্যন্ত তারা মালিক পক্ষ কোন সাড়া দেয়নি। দেখা যায় যারা চা বাগানের বাইরে থাকে তারা কিন্তু খুবই বিলাসবহুল জীবনযাপন করেন। কিন্তু চা শ্রমিকদের জীবনযাত্রার সবকিছুই চা নির্ভর। কারণ তাদের কাছে সবচেয়ে সহজলভ্য হচ্ছে চা। তারা সকালে চা পাতার ভর্তার সাথে রুটি দিয়ে নাস্তা করে নতুবা ভাত খেতে গেলেও চা দিয়ে ভাত খায়।

তিনি বলেন, বর্তমানে যেটা বাইরের মানুষ কল্পনাও করতে পারবে না। তাদের এই খাবার দাবার দিয়ে তাদের পুষ্টিমান পাওয়া যায় না। ১২০ টাকা দিয়ে আসলে কিছুই হয়না। আর এখন সবকিছুর দাম এমনভাবে বাড়তেছে তাদের জন্য হয়ত এই ভাত খাওয়াটাও অনেক কষ্ট হয়ে যাবে। আর এজন্যই তাদের এই মজুরি বৃদ্ধি করা খুবই দরকার।

শেয়ার করুন